ভারতের কালো বাজারে করোনার ওষুধ!

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে মহামারি করোনাভাইরাস। এর মধ্যেই কোটি ছাড়িয়েছে এ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। মৃত্যু হয়েছে পাঁচ লক্ষাধিক। ইতোমধ্যে ভারতে করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে বিশ্বে তৃতীয় অবস্থানে। লকডাউনের মধ্যেই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। নতুন এই করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কারের জন্যে যেখানে বিজ্ঞানীরা দিনরাত এক দিচ্ছেন, সেখানে ভারতের রাজধানী দিল্লির কালো বাজারে চড়া মূল্যে করোনা ভ্যাকসিন বিক্রি করছে অসাধু ব্যক্তিরা। সম্প্রতি ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসি’র এক অনুসন্ধানী তদন্তে উঠে এসেছে এই তথ্য।

তদন্তে দেখা গেছে যে, করোনাভাইরাস চিকিৎসায় ভারতে ব্যবহৃত হওয়া দুটি জীবন রক্ষাকারী ভ্যাকসিন রেমডিসিভির এবং টসিলিজুমাব-এর চাহিদা এতটাই বেড়ে গেছে যে সেগুলো এখন আর খোলা বাজারে পাওয়া যাচ্ছে না।

বিবিসি অভিনব শর্মা নামে একজনের সাথে কথা বলেছেন যার চাচা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। তারা অবস্থা খারাপ হওয়ার পর ডাক্তার শেষ চেষ্টা হিসেবে রেমডিসিভির ব্যবহার করার পরামর্শ দেন।

কিন্তু সেটা খোলা বাজারে পাওয়া এতটাই কঠিন যে শেষ পর্যন্ত তাকে কালো বাজার থেকে সাতগুণ দাম দিয়ে সেটা কিনতে হয়। রেমডিসিভির-এর সরকারি বাজার মূল্য ৫,৪০০ রুপি। কিন্তু কালোবাজারিরা এর জন্য ৩০ হাজার থেকে ৩৮ হাজার রুপি পর্যন্ত দাম হাঁকছে।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, কেবল মাত্র চাহিদার তুলনায় যোগান কম থাকায় এ ধরনের ঘটনা ঘটছে। রেমডিসিভির ওষুধটির প্রকৃত প্রস্ততকারক প্রতিষ্ঠান গিলিয়াড সায়েন্স থেকে জানানো হয়েছে, তারা ভারতের চারটি ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান – সিপলা, জুবিল্যান্ট লাইফ, হেটেরো ড্রাগস ও মাইলোন’কে এটি উৎপাদনের অনুমতি দিয়েছে। তবে বর্তমানে ভ্যাকসিনটি উৎপাদন করছে কেবল হেটেরো ড্রাগস।

এদিকে বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জনসংখ্যার দেশ ভারতে মহামারি করোনাভাইরাসের তাণ্ডব বেড়েই চলছে। প্রতিদিনই বাড়ছে সেখানে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, ভারতে এখন পর্যন্ত মোট ৭ লাখ ২৩ হাজার ১৯৫ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২০ হাজার ২০১ জনের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *